লাকসামে স্যাভলন ডিলারের তেলেসমাতি

315

লাকসাম প্রতিনিধি
কুমিল্লার লাকসামে স্যাভলন, ডেটলসহ লিকুইড এন্টিসেপটিক সংকট চলছে করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে। আর এ সংকটের ফায়দা লুটছে কতিপয় এজেন্ট/ডিলার। পুরো লাকসাম অঞ্চল জুড়েই এ চিত্র। আর লাকসামে বাবুল পালের পাল ব্রাদার্সের বিরুদ্ধে স্যাভলন এন্টিসেপটিক কিনতে যাওয়া দোকানী ও ফার্মেসীর মালিকদের বিপুল সংখ্যক সাবান ও হ্যান্ড ওয়াশ কিনতে বাধ্য করার অভিযোগ উঠেছে। অন্যথায় স্যাভলন ছাড়াই ক্রেতাদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। এছাড়াও অধিক দামে অতি প্রয়োজনীয় এ পণ্যটি বিক্রি করার অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে। এলাকার ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, কোম্পানী পণ্যের দাম না বাড়ালেও পাল ব্রাদার্স তেলেসমাতি দেখিয়ে করোনা সংকটে অধিক দামে পণ্য বিক্রি করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দেয়ার শুরু থেকেই লাকসামে স্যাভলনসহ অন্যান্য এন্টিসেপটিক লিকুইড সংকট দেখা দেয়। এ সুযোগে লাকসাম শহরের কুমার পট্টিতে অবস্থিত পাল ব্রাদার্স স্যাভলন লিকুইড নিয়ে কারসাজিতে নামে। ফার্মেসীর মালিক ও দোকানীরা স্যাভলন কিনতে গেলে সংকট দেখিয়ে পাইকারী দামের চাইতে অধিক দাম রাখছে। তাছাড়া, স্যাভলনের সাথে বিপুল সংখ্যক সাবান ও হ্যান্ড ওয়াশ কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে। অন্যথায় স্যাভলন ছাড়াই ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে ক্রেতাদের।
এদিকে, ‘স্যাভলন লিকুইড এন্টিসেপটিকের সাথে সাবান ও হ্যান্ড ওয়াশ প্যাকেজ’ এসিআই কোম্পানি কতৃক নির্ধারন করা হয়েছে বলে প্রচার করছেন বাবুল পাল। কিন্তু এসিআই কোম্পানীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন এ ধরনের কোন প্যাকেজ কোম্পানি দেয়নি। তাছাড়া, গ্রাহকদের এক পণ্যের সাথে আরেক পণ্য কিনতে বাধ্যবাধকতা নেই কোম্পানীর তরফ থেকে।
ভুক্তভোগী এক ফার্মেসীর মালিক জানান, এক লিটার স্যাভলন কিনতে গেলে এর সাথে ৩৬টি সাবান ও কয়েকশ’ টাকার হ্যান্ড ওয়াশ কিনতে বাধ্য করছেন পাল ব্রাদার্সের মালিক বাবুল পাল। এটা নাকি কোম্পানির নিয়ম। পরে স্যাভলন ছাড়াই ফিরে আসি। আমরা ফার্মেসীতে সাবান, হ্যান্ড ওয়াশ দিয়ে কি করব?

অপর এক ফার্মেসীর মালিক বলেন, আমি এক ডজন স্যাভলন এন্টিসেপটিক কিনতে গেলে এর সাথে আরো ৩ কার্টুন সাবানের প্যাকেজ কিনতে হবে বলে জানান পাল ব্রাদার্সের মালিক। পরে স্যাভলন না কিনেই ফিরে যাই। আর আমাদের কাস্টমাররা দোকানে এসে এ পণ্যটি ছাড়াই ফিরে যাচ্ছেন।

এ বিষয়ে স্যাভলন ডিলার পাল ব্রাদার্সের মালিক বাবুল পাল জানান, কোম্পানী আমাদেরকে ঠিকমত মালামাল সাপ্লাই দিচ্ছে না। স্যাভলন লিকুইডের সাথে সাবান ও হ্যান্ড ওয়াশের প্যাকেজ কিনতে হবে। এটা কোম্পানীর প্যাকেজ।
কিন্তু এসিআই কোম্পানীর কুমিল্লা জোনাল ম্যানেজার আমিনুল হক বলেন, কোম্পানীর তরফ থেকে এক পণ্যের সাথে অন্য পণ্য কিনতে কাউকে বাধ্য করা হয় না। আর এ ধরনের কোন প্যাকেজ কোম্পানীর নেই। তবে প্রয়োজনের তুলনায় স্যাভলন সাপ্লাই কিছুটা কম।

অন্যদিকে, ডেটল এন্টিসেপটিক লিকুইডের ডিলার অধ্যাপক মোঃ আবুল খায়ের জানান, আমাদের কাছে যা সাপ্লাই আসছে তাই আমরা বাজারে দিচ্ছি।
এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে লাকসাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম সাইফুল আলমকে ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। তবে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) উজালা রানি চাকমা বলেন, অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।