বাগমারা হাসপাতালে ইনডোর সেবা চালুর দাবী

196

স্টাফ রিপোর্টার ।। লালমাই উপজেলাবাসীর একমাত্র চিকিৎসালয় বাগমারা ২০ শয্যা হাসপাতালটিতে উদ্বোধনের ৪বছরেও ইনডোর সেবা চালু হয়নি। এতে স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন উপজেলার আড়াই লক্ষাধিক মানুষ। হাসপাতালটিতে ২৪ ঘন্টার জরুরী বিভাগ ও ইনডোর সেবা চালু করতে অর্থমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ স্বাস্থ্য বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন এলাকাবাসী।

অবশ্য গত এপ্রিলে অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল এমপির উদ্যোগে করোনা আক্রান্তদের সেবায় হাসপাতালটিতে করোনা ইউনিট ও ২টি আইসিইউ বেড স্থাপন করা হয়েছে।

জানা যায়, ২০০৫ সালে নির্মাণ কাজ শুরু হলেও ১ম ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অবহেলায় ২০১৬ সালের শেষের দিকে বাগমারা ২০ শয্যা হাসপাতালটির নির্মাণ সম্পন্ন হয়। এরপর বর্তমান অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল এমপির উদ্যোগে ২০১৭ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম আনুষ্ঠানিকভাবে বাগমারা ২০ শয্যা হাসপাতালটির আউটডোর সার্ভিস উদ্বোধন করেন। ওই সময় জনদাবীর মুখে তিনি শীঘ্রই ইনডোর সার্ভিস চালুসহ হাসপাতালটিকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করার অঙ্গীকার করেন।

উদ্বোধনী দিন থেকে একজন আবাসিক মেডিকেল অফিসার, একজন জুনিয়র মেডিসিন কনসালটেন্ট, একজন জুনিয়র সার্জারী কনসালটেন্ট, একজন জুনিয়র গাইনি কনসালটেন্ট, একজন জুনিয়র এনেস্থেসিয়া কনসালটেন্ট, একজন মেডিকেল অফিসার ও ৫জন সিনিয়র স্টাফ নার্সসহ মোট ২৩ জনের জনবল নিয়ে আউটডোর কার্যক্রম শুরু করলেও হাসপাতালটিতে দীর্ঘ ৪ বছরেও ইনডোর সেবা চালু করতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ। আর ইনডোর চালু না থাকার অজুহাতে হাসপাতালটিতে ২৪ ঘন্টার জরুরী চিকিৎসা সেবাও বন্ধ রয়েছে। সরকারিভাবে নেই কোন এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস।

বর্তমানে হাসপাতালটিতে চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত আছেন আবাসিক মেডেকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ আনোয়ার উল্যাহ, জুনিয়র কনসালটেন্ট (সার্জারী) ডাঃ মোহাম্মদ আলী, জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি) ডাঃ দিলদার সুলতানা স্বপ্না, সহকারি সার্জন ডাঃ নুরুদ্দিন ফয়সাল, ডাঃ দূর্লভ কান্তি পাল ও ডাঃ সোহাগ চক্রবর্তী। উপ-সহকারি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো) হিসেবে রয়েছেন মোঃ রবিউল আলম ও ফৌজিয়া আক্তার। সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে রয়েছেন ফেরদৌসি বেগম, শামীমা ফেরদৌসি, সখিনা আক্তার, অর্ভিল দাস ও আফরোজা জাহান মুক্তা। কর্মচারী হিসেবে রয়েছেন ওয়ার্ড বয় আওলাদ হোসেন ও অফিস সহায়ক ইউছুফ। এছাড়া বাগমারা উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের সহায়তায় ২জন নিরাপত্তাকর্মী ও স্থানীয় ব্যবস্থাপনায় ৩ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী কর্মরত রয়েছেন।

লালমাই প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো: কামাল হোসেন বলেন, লালমাই উপজেলাবাসী চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত। শীঘ্রই একটি এ্যাম্বুলেন্স, ২৪ ঘন্টার জরুরী বিভাগ ও ইনডোর সেবা চালুর দাবী জানাচ্ছি।

লালমাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আইয়ুব বলেন, বাগমারা ২০ শয্যা হাসপাতালে ২৪ঘন্টা জরুরী বিভাগ ও ইনডোর সেবা চালু করতে গত বছরের ২০ মার্চ আমি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানিয়েছি।

বাগমারা ২০ শয্যা হাসপাতালের আরএমও ডা: আনোয়ার উল্যাহ বলেন, ২৪ ঘন্টা করোনা ইউনিট সচল রয়েছে। জরুরী বিভাগ চালু না থাকলেও কভিড-১৯ ব্যতিত অন্যান্য জরুরী রোগীদেরও আমরা প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি।

লালমাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মজুমদার বলেন, মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয় করোনা আক্রান্তদের সেবায় করোনা ইউনিট ও আইসিইউ বেড স্থাপন করে দিয়েছেন। আমরা বিশ্বাস করি শীঘ্রই ইনডোর সেবাও চালু হবে।

অর্থমন্ত্রীর ছোট ভাই ও কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সারওয়ার বলেন, বাগমারা হাসপাতালে আউটডোর সার্ভিস ও করোনা ইউনিট সচল রয়েছে। শীঘ্রই ইনডোর সেবা চালু করে লালমাইবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য বিভাগের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।