বাগমারা বাজার রক্ষায় ব্যবসায়ীদের সংবাদ সম্মেলন

19

কাজী নিমেল: বহুদিনের চালিয়ে আসা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের হাত থেকে রক্ষা করতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন লালমাই উপজেলার শতবর্ষী বাগমারা বাজারের দোকান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। ২৫ শে জুন (শনিবার) বাগমারা বাজারের গিরিশ সুপার মার্কেটের ২য় তলায় সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন দোকান মালিকদের পক্ষে বাজার রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক নুরুল ইসলাম।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, শতবর্ষী বাগমারা বাজার রক্ষায় ২৩-০৯-২০২১ ইং মাননীয় অর্থমন্ত্রীর ডিও লেটার ও ০২-০৯-২০২১ ইং ডিসি অফিস, সওজ কুমিল্লা ও স্থানীয় ইউএনও সহ যৌথ তদন্তের ভিত্তিতে পরিকল্পনা গ্রহণ না করে গত ১৫-০৬-২০২২ইং কিছু সার্থান্বেষী মহলের সাথে যোগাযোগ করে তাদের ইচ্ছামত বাগমারা বাজারের পাশে বিভিন্ন স্থানে কোথাও কম, কোথাও বেশি করে মাপ টেনে দাগ দিয়ে যায়। এতে জনগণ ও ভূমি মালিকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করে কোন দিক দিয়ে রাস্তা গেলে ক্ষতি কম হবে তা প্রকাশ করতে হবে। কারণ দুই রাস্তার পাশে প্রায় ১৫শ জন লোক ও ৫শ দোকান ব্যবসায়ী ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণের পর যে দিক দিয়ে রাস্তা যাবে,ঐ রাস্তার দুই পাশের ভূমি মালিকদের সাথে আলোচনায় বসতে হবে। ক্ষতি পূরণের টাকা ও অন্যান্য সমস্যাগুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা সম্ভব। উল্লেখ যে ২০০১ সালে বাগমারা উত্তর বাজারে ব্রীজ করার সময় ভূমি মালিকদের ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয় নাই৷ অধিগ্রহণকৃত ভূমির টাকা হাল ক্ষতিয়ান অন্যান্য বর্তমান রেকর্ড অনুসারে মালিকদের টাকা পাওয়া নিশ্চিত করে তারপর দোকানপাট ভাঙ্গার পরিকল্পনা করতে হবে। নতুন করে কোনো মামলা দিয়ে মালিকদের হয়রানি করা যাবে না। উপরোক্ত বিষয়গুলো বিবেচনায় এনে পরিকল্পনা গ্রহণ করলে আমরা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পে সহযোগিতা করব। বসত বাড়ী, ৩টি বড় মসজিদ, ২টি শতবর্ষী মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শতবর্ষী বাগমারা বাজার রক্ষা করে বাইপাস/বিকল্প সড়ক নির্মাণ করতে হব। ১০ তলা ভবনসহ বহুতল ভবন, ৩শ টি দোকান, ২ হাজার লোকের কর্মহীন হওয়ার সম্ভাবনা ও ৫ হাজার পরিবারকে ক্ষতি হতে রক্ষা করতে শতবর্ষী বাগমারা বাজার রক্ষায় বাইপাস সড়ক নির্মাণ করতে হবে।
বাগমারা বাজারের ভূমি মালিক কাজী শওকত হোসেন বলেন, লাকসাম-সোনাইমুরি আঞ্চলিক সড়কের বাগমারা অংশে ব্রীজ স্থাপনের প্রাক-কালে রাস্তার পূর্বপাশে আমাদের ভূমির ৭ শতাংশের ২ শতাংশ অধিগ্রহণ করা হয়। এখন আবার চার লেন প্রকল্পে অধিক ভূমি অধিগ্রহণ করলে, আমাদের থাকার জায়গা থাকবেনা। ফলে আমরা গৃহহীন ও ভূমিহীন হয়ে পড়ব। তাই আমি বিকল্প সড়ক /বাইপাস সড়ক নির্মাণের দাবি জানাই।
সংবাদ সম্মেলনে ভূমি মালিকদের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন বাজার রক্ষা কমিটির আহবায়ক আবদুল বারী, সদস্য সচিব অধ্যাপক নুরুল ইসলাম, অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা সুরেশ সূত্রধর, আইন শৃঙ্খলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান মেম্বার, অবসরপ্রাপ্ত উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসার কাজী শওকত হোসেন, বাগমারা উঃ ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক, হাসান মাহমুদ মানিক, ইজরাদার সমন্বয়ক মফিজুল ইসলাম, শাহালম মেম্বার, সাবেক বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক বজলুর রহমান, হাফেজ খোরশেদ আলম, শাওন, হৃদয় প্রমুখ।
তাদের উপস্থাপিত যৌক্তিক দাবিগুলো আদায় না হলে ব্যবসায়ী ও ভূমি মালিকগণ পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষণা করবে বলে জানান বাজার রক্ষা কমিটির আহবায়ক আব্দুল বারী।