আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক মতিনের বিরুদ্ধে বিধিবহির্ভূত চিকিৎসার অভিযোগ

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

316

জাফর আহমদ ।।  লাকসাম সরকারী হাসপাতালের আয়ুর্বেদিক মেডিকেল অফিসার আবদুল মতিনের বিরুদ্ধে বিধিবহির্ভূত চিকিৎসা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকগণ আয়ুর্বেদিক ঔষধ ছাড়া অন্য ঔষধ লেখার নিয়ম না থাকলেও আবদুল মতিন রোগীদের নিয়মিত এলোপ্যাথিক ঔষধ লিখে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন-২০২০ এর ৩৮ ধারার উপধারা (৩) এ বলা আছে একজন ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক কোন অবস্থাতেই অন্য কোন চিকিৎসা পদ্ধতির ঔষধ রোগীকে সেবন বা গ্রহণ করিবার পরামর্শ দিতে পারিবেন না। অথচ আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক আঃ মতিন তার রোগীদেরকে এলোপ্যাথিক ঔষধসহ অন্য চিকিৎসার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। একই ধারার উপ-ধারা (৪) এ বলা আছে তিনি রোগীকে ঔষধের নাম, পটেন্সি ও শক্তি উল্লেখপূর্বক অবশ্যই প্রেসক্রিপশন বা ব্যবস্থাপত্র প্রদান করিতে বাধ্য থাকিবেন। কিন্তু আঃ মতিন তার ব্যবস্থাপত্রে এসব উল্লেখ না করে রোগীদের সাথে প্রতারনা করছে বলে ভূক্তভোগীরা জানিয়েছেন। ৩৮ ধারার ৩ ও ৪ উপধারা ভঙ্গ করলে ৪২ ধারার উপধারা (২) অনুযায়ী তার ১ বছরের সাজা ও এক লাখ টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। কিন্তু আঃ মতিন এসব আইনের তোয়াক্কা না করে তার মনমতো চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আঃ মতিনের বিরুদ্ধে রোগীদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণসহ অপচিকিৎসার অভিযোগ রয়েছে।

২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর লাকসাম সরকারী হাসপাতালে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক হিসেবে যোগদানের পর থেকে বেশ দাপটের সহিত চাকুরীর পাশাপাশি তিনি আন্ডারগ্রাউন্ডে বিএনপির রাজনীতিও করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তার ফেইসবুক আইডিতে আওয়ামীলীগ সরকার বিরোধী বহু প্রচারণা রয়েছে।
এসব বিষয় নিয়ে আঃ মতিনের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকলে লিখিত অভিযোগ দিন।